বিকাশ পিন নাম্বার লক হয় কি কি কারনে?

বিকাশ পিন নাম্বার লক হয় কি কি কারনে?

বিকাশ বাংলাদেশের মধ্যে একটি মোবাইল ব্যাংকিং জনপ্রিয় সেবা প্রতিষ্ঠান। ব্রাক ব্যাংক হল বিকাশের মূল প্রতিষ্ঠান। আপনি যদি বিকাশের গ্রাহক হয়ে থাকেন এবং আপনার যদি বিকাশের একাউন্টের পিন লক হয়ে যায়। সেই পিন কিভাবে একাউন্টে আপনি রিসেট করতে পারবেন আজকে এ বিষয়ে আপনাদের লগে কথা আলোচনা করব।

বিকাশ পিন কি?

আসুন প্রথমেই বিকাশ পিন কি এ সম্পর্কে কিছু জেনে নেই ? বিকাশ পিন বা পাসওয়ার্ড হলো আমাদের নিজস্ব আইডেন্টিফিকেশন নাম্বার । অর্থাৎ আমরা যে বিকাশ অ্যাকাউন্টের মালিক বিকাশের প্রত্যেকটা ট্রানজেকশন ক্ষেত্রে ৫ সংখ্যার একটি গোপন পিন প্রয়োগ করতে হয় আমাদের। সেই সংখ্যাটি হল বিকাশ পিন নাম্বার। আর এই ৫ সংখ্যার পিন ছাড়া কোনভাবেই কেউ বিকাশ একাউন্টের টাকা লেনদেন করতে পারবে না। আমরা কখনোই এই পিন কারো সাথে শেয়ার করবো না । কোন পারসন ব্যক্তি যদি আপনাদেরকে মেসেজ করে বা আপনাদেরকে ফোন কল করে আপনার বিকাচ পিন নাম্বার টি চায়। আপনি মেসেজ অথবা ফোন কোনটি কখনোই উত্তর দিবেন না। কেননা বিকাশ সংস্থা থেকে কখনোই আমাদের কাছ থেকে এই গোপন পিন নাম্বার চাইবেনা।

বিকাশ বিকাশ পিন নাম্বার লক বা ব্লক হয় কেন?

বিকাশ পিন নাম্বার একান্ত আপনার শুধু ব্যক্তিগত জানার কথা । আপনার ব্যক্তিগত বিকাশ একাউন্ট টি যদি অন্য কেউ ব্যবহার করতে চাই আপনার অনুমতি ছাড়া। তাহলে প্রথমত তার পক্ষে আপনার পিন নাম্বারটি জানার কথা না। এখন ঐ ব্যক্তি যদি বিকাশ একাউন্টে ঢুকতে গিয়ে আপনার যে পিন নাম্বারটি আছে সে যদি তিন বার ভুল করে। তাহলে সাথে সাথে অটোমেটিক ভাবেই আপনার একাউন্টটি পিন ব্লক হয়ে যাবে নাম্বার। অথবা আপনি যদি ভুলবশত নিজের অজান্তে তিনবারের বেশি ভুল পিন সাবমিট করেন। তাহলে অটোমেটিকালি ভাবে বিকাশ থেকে আপনার একাউন্টের পিন লক হয়ে যায়।

তাই আপনার একাউন্টের বিকাশ পিন নাম্বারটি কোথাও লিখে রাখুন যাতে ভবিষ্যতে বিকাশ পিন যদি ভুলে গেলে। সেখান থেকে দেখে আপনি আপনার একাউন্টটি সচল রাখতে পারেন যাতে একাউন্ট লক না হয়। বিকাশ পিন নাম্বার লক A n

Leave a comment